Entrepreneur

একজন উদ্যোক্তার অত্যাবশ্যকীয় করণীয় কার্যাবলী

SM ALAMGIR

অনলাইনে বিজনেস করতে হলে নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর প্রতি নজর দেওয়া একজন উদ্যোক্তার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একজন উদ্দ্যোক্তাকে প্রতিটি পদক্ষেপ সূক্ষ্মভাবে অগ্রসর হতে হয়।

বর্তমান যুগ ডিজিটাল যুগ। এ যুগে নিজেকে টিকে থাকতে হলে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই ।  আপনাকে প্রত্যেকটা মুহূর্তে নতুন নতুন কৌশল শিখতে হবে।

 

১) কোয়ান্টিটির চেয়ে কোয়ালিটির দিকে বেশি মনযোগী হতে হবে। আপনার ফেসবুক পেইজ/গ্রুপে লক্ষাধিক লাইক/ফলোয়ার থেকে কোনো লাভ নাই যদি তারা কেউ আপনার সাথে কানেক্টেড না থাকে কিংবা কেউ আপনার প্রোডাক্ট কিনে। লাইক, কমেন্ট, শেয়ার দিয়ে একটিভ থাকে, নিয়মিত প্রোডাক্ট কিনে, রিভিউ দেয় এমন ৫০০ জন মানুষ ইন-একটিভ ৫ লাখ ফলোয়ারের চেয়ে বেশি কার্যকর।

 

২) শুরুতেই সব বিষয়ে বিশাল জ্ঞানী না হয়ে নিজের আয়ত্তের যেকোনো নির্দিষ্ট একটি দিকে ফোকাসড হয়ে সে বিষয়ে সবার সেরা হওয়ার চেষ্টা করা উচিত। সব বিষয়ে অল্প অল্প জ্ঞানী হওয়ার চেয়ে যেকোনো একটাতে পারদর্শী হওয়া জরুরী।

 

৩) কম কথা বলা ও বেশি কথা শোনা! আপনার টার্গেট কাস্টমারদের বিভিন্ন পোস্ট, স্ট্যাটাস, কমেন্ট/রিপ্লাই ও তাদের অন্যান্য একটিভিটি দেখে তাদের পছন্দ-অপছন্দ, চাহিদা, আগ্রহ, কি কি বিষয় তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ, সেসব ব্যাপারে স্পষ্ট ধারণা নিয়ে নিজের পণ্য/সেবার মানোন্নয়নে কাজ করলে ভালো ফল আসবে।

 

৪) ধৈর্য ধৈর্য ধৈর্য! এর কোনো বিকল্প নাই। কোনো টেকসই সফলতাই রাতারাতি আসে না। নিজের ব্যক্তিগত ও প্রোডাক্টের ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য নিয়মিত সাহস ও সততার সাথে কাজ করতে হবে। প্রতিদিনের একটু একটু চেষ্টাতেই উদ্যোগের সফলতা আসবে।

 

৫) কোয়ালিটি কন্টেন্ট/প্রোডাক্টের কোনো বিকল্প নাই। প্রোডাক্ট ভালো হলে সন্তুষ্ট কাস্টমাররা তাদের স্ব স্ব কমিউনিটিতে শেয়ার করবে, তাদেরও আপনার সম্পর্কে রেফার করবে। এতে ১০ জন থেকে ক্রমান্বয়ে ১০*১০=১০০ জনের কাছে আপনি পৌঁছে যাবেন। এক্ষেত্রে ইমোশনালি কানেক্টিং স্টোরি টেলিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। যত পারেন প্রোডাক্ট কোয়ালিটি ভালো করুন।

 

৬) বাস্তবে বা সোশ্যাল মিডিয়ায় যাদেরকে মানুষ ফলো করে, যাদের কথা মানুষ বিশ্বাস করে বা যাদের গ্রহণযোগ্যতা আছে তাদেরকে আপনার ক্রেতা বানানোর চেষ্টা করা যেতে পারে। উল্লেখিত বেশ কয়েকজন ইনফ্লুয়েন্সার থেকে আপনার প্রোডাক্টের পজিটিভ রিভিউ আপনার উদ্যোগকে সমাজের অগণিত মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে সক্ষম। এবং এটা খুবই কার্যকরী।

৭) মানুষের জীবনে ভ্যালু এড করে, এমন সব বিষয়েও একটিভিটি থাকতে হবে। কেননা, আপনি যদি সারাক্ষণ সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের ব্যবসায়িক পোস্ট দেন মানুষ আগ্রহ হারিয়ে ফেলবে ও বিরক্ত হবে। নিজেই নিজেকে মূল্য দিতে শিখতে হবে।

 

৮) গ্রাহককে অবহেলা বা ইগনোর করা উচিত না। যেই আপনার পেইজে বা গ্রুপে আপনার সাথে কথা বলতে চাইবে, তাদের সাথে যথাসম্ভব সুন্দর করে যোগাযোগ রক্ষা করা উচিত যাতে আপনার আচরণে মুগ্ধতায় কাস্টমারের সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠে।

 

৯) প্রত্যেকের ফেসবুক পেইজ, গ্রুপে বা নিজের প্রোফাইলে পোস্ট দিয়ে হারিয়ে যাওয়া কিংবা মেসেজে রিপ্লাই না দিয়ে ভাব নেয়া পরিহার করতে হবে। যত দ্রুত সম্ভব প্রয়োজনীয় উত্তর না পেলে ক্রেতা হারানো বা তাদের অন্যত্র চলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কেননা, আপনি যোগাযোগ রক্ষা না করলে/রিপ্লাই না দিলেও আরো অসংখ্য অপশন কাস্টমারের কাছেও আছে। তাই, নিয়মিত যোগাযোগ বজায় রাখতে হবে। যোগাযোগ রক্ষার বিকল্প কোন পন্থা নেই।

 

১০) আপনাকেও অন্যদের সাথে সব সময় যোগাযোগ রাখতে হবে, তাদের পোস্টে লাইক, কমেন্ট, শেয়ার বা রিভিউ দিয়ে পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নত রাখতে হবে। এতে আপনার পরিচয় বা প্রোডাক্টের কথা তাদেরও মনে থাকবে। আর, আপনি যদি একেবারেই কারো সাথে যোগাযোগ রক্ষা না করেন, তারাও এক সময় আপনাকে ভুলে যাবে। এটাই স্বাভাবিক।

 

আশা করি, উল্লেখিত প্রত্যেকটা টা বিষয় আপনাদের অনেকের জন্য উপকারী হবে। বিশেষত যারা অনলাইনে নিজেদের ব্যবসা-বাণিজ্য করছেন। অবশ্য, ব্যক্তিগত জীবনেও এসব প্রয়োজনীয়।

 সব শেষে আপনাকে বিনীত ভাবে অনুরোধ করছি ,  আমাদের এই ছোট্ট উদ্যোগটি  আপনাদের যদি ভালো লাগে তবে সর্বদা আমাদের পাশে থেকে আমাদের সাহস বাড়াতে পোস্ট গুলোতে লাইক, কমেন্ট এবং শেয়ার করে আমাদের কাজের স্পৃহা আরো বাড়িয়ে দিতে আপনারা বিশেষ ভূমিকা রাখবেন এবং সেই সাথে আপনার একটি শেয়ার হয়তো আপনার নিকটস্থ কারো জন্য একটি নতুন দরজা খুলে দিতে পারে । সেই আশা বাদ ব্যক্ত করে সবাইকে আবারো ধন্যবাদ দিয়ে বিদায় নিচ্ছি।  আজ এ পর্যন্ত । সবাই ভালো থাকুন সুস্থ্য থাকুন। দেখা হবে পরবর্তী নতুন কোন আর্টিকেলে।  আল্লাহ হাফেজ।

.

.

.

.

আমাদের আরো পপুলার আর্টিকেল

 

Spoken English Course :

Model Test :

Health Tips :

Outsourcing/Online Income :

Others Articls :

5 Comments

  1. আসসালামু আলাইকুম ।আপনার প্রতিটি আর্টিকেল আমাকে অনেক বেশি উৎসাহ জুগিয়ে থাকে। প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠার পর যখন আপনার লেখা পড়ি তখন কাজের প্রতি দ্বিগুন উৎসাহ এবং উদ্দীপনা ফিরে পাই। অনেক ধন্যবাদ আপনাকে ।

  2. অনেক কিছু শিখতে পারলাম আর জানতে পারলাম, অনেক ধন্যবাদ আপনাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related Articles

Back to top button
error: Alert: Content is protected !!